আমার শহর শিলিগুড়িঃ ভাত বাঙালীর প্রতিদিনের সঙ্গী। মেদ যতই বাড়ুক, এক বেলা ভাত না খেলে বাঙালীর চলে না। তবে আর চিন্তা নেই। ভেতো বাঙালীর জন্য সুখবর। যদিও বর্তমানে শরীর সচেতন কিছু বাঙালী মেদ বৃদ্ধির ভয়ে ভাতের পরিবর্তে অন্যান্য হাল্কা খাবারের প্রতি আকৃষ্ট হচ্ছে। তাদের জন্য সুখবর,কারন এখন থেকে যত খুশী ভাত খান, মেদ বৃদ্ধির ভয় নেই। শ্রীলঙ্কার একদল গবেষক এমন এক রান্নার পদ্ধতি বের করেছেন যাতে ভাতের ক্যালোরি ৫০ শতাংশ কমিয়ে নেওয়া যায়। তাদের মতে সব স্টার্চ এক রকম নয়। সরল স্টার্চ হজম হতে সময় কম লাগে আর জটিল স্টার্চ হজম হতে বেশি সময় লাগে। শরীরে যদি বেশি পরিমাণ গ্লাইকোজেন জমা হয় তা হলে মেদ কমানোর জন্য বেশি এনার্জির প্রয়োজন হয়। তাই চাল ফোটানোর আগে জলে নারকেল তেল দিলে স্টার্চ সহজে হজম করতে সাহায্য করে। এতে শরীরে মেদ বৃদ্ধির সম্ভাবনা থাকে না।
এর জন্য কি করতে হবে দেখুন –

  • প্রথমে জল ফুটতে দিন। জল ফুটে উঠলে চাল দেওয়ার আগে জলের মধ্যে সামান্য নারকেল তেল দিন।
  • আধ কাপ চালের ভাত করতে হলে এক চা-চামচ নারকেল তেল মেশাবেন।
  • চালের পরিমাণ বাড়লে, সেই অনুপাতে নারকেল তেলের পরিমাণও বাড়িয়ে নেবেন।
  • ভাত হয়ে গেলে তা ঠান্ডা করে খাওয়ার আগে অন্তত ১২ ঘণ্টা ফ্রিজে রেখে দিন।
  • খাওয়ার আগে পরিমাণ মতো গরম করে নিন।

  • এবার ঘরে বসে যত খুশী ভাত খান,পরিবর্তে বাড়বে না একটুও মেদ।