আমার শহর শিলিগুড়িঃ লকডাউনে অনেকেই নিজ নিজ গৃহে ভালোমন্দ রান্না করছে। একই সাথে আবার সেই রান্না করা খাবারের ছবিগুলিও পোস্ট করছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তারা সহ সকল ভোজন রসিক ব্যক্তিদের মনে ধাক্কা দিয়ে প্রকাশ্যে উঠে এল এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। রাতের অন্ধকারে রাস্তার কুকুর কেটে সেই মাংসকে পাঁঠার মাংস বলে বিক্রি করার চেষ্টা করছিল এক খাসির মাংসের বিক্রেতা। যদিও অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশ।
ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ কলকাতার বাঘাযতীন এলাকায়। উক্ত এলাকার শ্রীকলোনী বাজারের এক মাংস বিক্রেতা এই অমানবিক কান্ড ঘটিয়েছে। জানা যায়, বুধবার রাত দশটা নাগাদ ওই এলাকার একটি রাস্তার কুকুরকে খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে নিয়ে যায় ধৃত ব্যক্তি। তারপরে কুকুরটিকে বেঁধে আটকে রাখে সে। ঠিক সেই সময়েই স্থানীয় কিছু বাসিন্দা বিষয়টি লক্ষ্য করেন এবং তখনই হাতেনাতে ধরা পরে যায় ওই মাংস ব্যবসায়ী। এলাকাবাসীর চাপের মুখে নিজের দোষও স্বীকার করে নিয়েছে অভিযুক্ত।

রাজ্যের আসে পাশের এলাকা এবং গ্রাম থেকে কলকাতায় ছাগল নিয়ে আসা হয় শহরে মাংসের যোগান দেবার জন্য। লকডাউনের কারণে সেই সব এখন প্রায় বন্ধ। কিন্তু বাঘাযতীনের শ্রীকলোনী বাজারের এই মাংসের দোকানে নিয়মিত মাংস বিক্রি করা হচ্ছিল বলে জানায় স্থানীয় এলাকাবাসী । সেই সাথে লকডাউন ঘোষণা হওয়ার পর থেকে এলাকার বেশ কিছু কুকুরের দেখাও পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানায় স্থানীয় এলাকাবাসী । তবে কি ওই দোকান থেকে এতিদিন তারা খাসির মাংসের নামে কুকুরের মাংস কিনে খাচ্ছিল ? এই নিয়ে চাঞ্চল্য এবং আশঙ্কা দুইই সৃষ্টি হয়েছে বাঘাযতীন এলাকায়।