আমার শহর শিলিগুড়িঃ ভারতবর্ষ একটি গণতান্ত্রিক দেশ। যেখানে দেশের সকল নাগরিকদের সমান অধিকার রয়েছে। কিন্তু বর্তমানে দেশের আইনী ব‍্যবস্থা শুধুমাত্র দেশের বিত্তবান, প্রভাবশালী এবং ক্ষমতাবান ব‍্যক্তিদের জন্যই তৈরি করা হয়েছে। এমনই মন্তব্য করেন সুপ্রীম কোর্টের বিদায়ী বিচারপতি দীপক গুপ্তা। গতকাল তিনি নিজের বিদায়ী ভাষণে এই কথাগুলো বলেন। শুধু তাই নয় বিচারপতিদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, বিচারকরা আইভরি টাওয়ারে বসবাস না করলেও, বিশ্বের কোথায় কী হচ্ছে, সে সম্পর্কে তাঁদের অবশ্যই সচেতন থাকতে হবে। করোনা মহামারীর পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আদালতকে অবশ্যই দেশের দরিদ্র ও গরীব মানুষ যারা সবরকম সুবিধা থেকে বঞ্চিত,তাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। কারন এই সঙ্কটের মুহূর্তে তারাই সবথেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত ।
ভারতের ইতিহাসে তিনিই প্রথম বিচারপতি, যিনি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তার কর্মজগৎ থেকে বিদায় নিলেন। করোনা ভাইরাসের কারণেই তাকে এভাবে বিদায় নিতে হয়। সুপ্রীম কোর্টের বার অ্যাসোসিয়েশন কর্তৃক আয়োজিত এই বিদায়ী সভায় দীপক গুপ্ত আরও বলেন – “আমাদের দেশের আইন ব‍্যবস্থা পুরোপুরি ধনী ও ক্ষমতাবানদের জন্য। সেখানে গরীবদের কোন সুবিধা নেই। কোন ধনী ও ক্ষমতাবান ব‍্যক্তি যদি জেলে বন্দী থাকে, তাহলে তিনি নিজের মনের মতো বিচার না পাওয়া পর্যন্ত উচ্চ আদালতে আবেদন করতে থাকে । অপরদিকে গরীব মানুষেরা উচ্চ আদালতে আবেদন করতে পারেন না। তাই তাদের মামলার বিচারও হয় যথেষ্ট দেরীতে। এছাড়া এই কোর্টের বেড়াজালে জড়িয়ে পড়ে তাদের অর্থেরও অপচয় হয়। আবার কোনো ধনী ব্যক্তি যদি জামিনে থাকেন তবে তিনি অর্থের বিনিময়ে বারবার উচ্চ আদালতে আবেদন করে বিচার ব্যবস্থাকে দীর্ঘ করে তোলেন।”
বিচারপতি গুপ্ত ১৭ ই ফেব্রুয়ারী ২০১৭ সালে দেশের শীর্ষ আদালতে যোগদান করেন। তিনি অন্যান্য বিচারপতি‌দের উদ্দেশ্যে বলেন, “আপনারা জানেন আমাদের দেশের মানুষের বিচার ব‍্যবস্থার প্রতি অগাধ বিশ্বাস রয়েছে। এই অবস্থায় আমরা মুখ লুকিয়ে থাকিতে পারিনা এবং বলতে পারি না যে বিচার ব‍্যবস্থায় কিছু হচ্ছে না। আমাদের আশেপাশে ঘটে যাওয়া সমস‍্যাগুলি চিহ্নিত করতে হবে এবং তার মোকাবিলা করতে হবে । বিচার ব‍্যবস্থার অখন্ডতা এমন একটি বিষয় যা কোনো পরিস্থিতিতেই ঝুঁকির মধ্যে ফেলা যায়না।”
তিনি আরও বলেন-“আমি দেখেছি আইনজীবীরা নিজ নিজ রাজনৈতিক ও আদর্শগত মতাদর্শের ভিত্তিতে তর্ক করেন, আইনের ভিত্তিতে কেউ তর্ক করেন না। নিজের মক্কেলকে বাঁচাতে হলে আইনের দিক দিয়ে যুক্তি দিন, অন‍্য কোনো যুক্তি নয়।”
বিদায়ী ভাষণে দেশের বিচার ব্যবস্থা নিয়ে এমন বক্তব্য এর আগে কোন বিচারপতি করেননি। দেশের সাধারণ মানুষের জন্য তার এই ভাবনা যথেষ্ট প্রশংসনীয়।