আমার শহর শিলিগুড়িঃ ফারাক্কার গঙ্গায় কুমীরের অস্তিত্ব নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই বিতর্ক ছিল। স্থানীয় মৎস্যজীবিরা এখানে কুমীরের অস্তিত্ব নিয়ে একাধিক বার কথাও বলেছিল। কিন্তু ফরাক্কা ব্যারেজ কর্তৃপক্ষ তা অস্বীকার করে। কারণ এখনো পর্যন্ত তার প্রমাণ কেউ দিতে পারে নি। কিন্তু এই লকডাউনের কারনে গঙ্গার চর পুরো ফাঁকা এবং ব্রিজের ওপর দিয়ে চলছে না কোনও যানবাহন। এই অবস্থায় সেখানে দেখা মিলল কুমীরের।
শনিবার বেলা ১২ টা নাগাদ মুর্শিদাবাদ ও মালদা জেলার মাঝে ফারাক্কা বাধের দক্ষিণ অংশে দেখা মেলে এই কুমীরের।
বিশেষজ্ঞদের অনুমান এই কুমীরটির মূল নিবাস হতে পারে সুন্দরবন। কোন ভাবে এটি চলে এসেছে ফারাক্কায়। এর পর আর এগোতে না পারায় এখানেই রয়ে গেছে। এর আগে অনেক মৎসজীবিই এই কুমীরটিকে দেখে কিন্তু কোন প্রমান দিতে না পাড়ায় অনেকে তা বিশ্বাস করে নি।