দাবানলের শিখায় উত্তরাখণ্ডের জঙ্গল বিপন্ন। সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত ২০টি আলাদা আলাদা আগুন লাগার ঘটনা সামনে এসেছে এই এলাকার অরণ্য থেকে। আর তাতেই বাড়ছে চিন্তা। দাবানলের পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়াতে এলাকার তাপমাত্রা বাড়ছে হু হু করে। পাহাড়ের পরিবেশটাই পাল্টে গিয়েছে। বন বিভাগের কর্মীদের মতে প্রচণ্ড হাওয়ার কারণে ৫ থেকে ৬ হেক্টর জমির জঙ্গল দ্রুত পুড়ে গিয়েছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতেও সমস্যা হচ্ছে। দমকলের বাহিনী কাজ করে চলেছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য।
সারা ভারতে যত প্রজাতির পাখি পাওয়া যায়, তার মধ্যে অর্ধেকের বেশি প্রজাতির পাখি মেলে এখানে। এছাড়া রয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির পশু। এই অরণ্যের জীব বৈচিত্র‌্য বা বায়োডাইভারসিটিও যথেষ্ট সমৃদ্ধশীল। জল,জঙ্গল এবং জমির এক বৈচিত্র‍্যময় প্রকৃতি এখানে গড়ে উঠেছে। ফলে এই অঞ্চলের এই অবস্থা পরিবেশবিদ্ দের যথেষ্ট চিন্তার কারন হয়ে দাড়িয়েছে। এই জঙ্গল থেকে সারাবছর প্রায় প্রচুর টাকার বাণিজ্য হয়। পাহাড়ি রাজ্যের অর্থনৈতিক প্রায় সমস্ত কার্যকলাপ চলে এই অরণ্যের মাধ্যমেই। আর সেখানেই আগুন লেগে যাওয়াও চিন্তা অনেকটাই বেড়ে গিয়েছে। এছাড়া এই অগ্নিকাণ্ডের ফলে ধ্বংস হবে পরিবেশ, ক্ষতিগ্রস্ত হবে ঐ এলাকার পুরো বাস্তুব্যবস্থাটাই।