আমার শহর শিলিগুড়িঃ আগামী পরীক্ষা কিভাবে হবে, অনলাইনে ছাত্র ছাত্রীরা কিভাবে পড়বে এসব বিষয় থেকে শুরু করে শিক্ষকদের নির্দিষ্ট সময়ে বেতন- এই সব সমস্যা নিয়ে করোনা-সঙ্কটে পড়ুয়া এবং শিক্ষকদের অসুবিধার কথা জানতে ইউ.জি.সি. প্রত্যেক কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়কে নির্দিষ্ট “বিভাগ”বা “সেল” তৈরি করতে বলেছিল। তৈরী করতে বলেছিল আলাদা ই-মেল এবং ফোন নম্বরও। যেসমস্ত কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় এখনও পর্যন্ত এই ‘সেল’ তৈরি করেনি, তাদের ৩০ মে-র মধ্যে তা করবার অনুরোধ জানায় ইউজিসি।
মঙ্গলবার সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং কলেজের অধ্যক্ষকে চিঠি দিয়েছেন ইউ.জি.সি-র চেয়ারম্যান শ্রী ডি পি সিংহ। সেই চিঠিতেই তিনি সেল তৈরীর কথা লিখেছেন। সেই সাথে তিনি আরও জানান -সারা দেশের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী এবং শিক্ষকদের অসুবিধার কথা জানতে ইউজিসি নিজে একটি “সেল” তৈরি করেছে। ইতিমধ্যেই সেই সেল-এ প্রচুর অভিযোগও জমা পড়েছে। পড়াশোনা ব্যবস্থা থেকে শুরু করে পরীক্ষা, ভর্তির টাকার অঙ্ক, শিক্ষকদের সময়ে বেতন না-পাওয়া ইত্যাদি নানা বিষয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়েছে সেখানে। সেইসাথে অনেকে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন- পরীক্ষা কি করে হবে ? সময়ে পাঠ্যক্রম শেষ হবে কি না? ভর্তির পদ্ধতি কি হবে? এছাড়া অনলাইন ক্লাস এবং প্রযুক্তি বিভ্রাট নিয়েও প্রচুর প্রশ্ন করা হয়েছে সেখানে। ইউ.জি.সি.-এর চেয়ারম্যান জানান – এই সমস্ত সমস্যার সমাধান সংশ্লিষ্ট কলেজ অথবা বিশ্ববিদ্যালয় অথবা রাজ্য সরকারের হাতে। তিনি তাদের সময় বেঁধে সমাধান বার করার অনুরোধ করেন। আর এবিষয়ে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয় এবং রাজ্য সরকারের তৈরি টাস্ক ফোর্সকে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে কি কি পদক্ষেপ নেওয়া হলো তা ইউ.জি.সি কে জানানোর নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।