“ভারত এবং ইন্ডিয়া”- দেশের এই দুটো নামের পরিবর্তে একটি নাম রাখবার কথা ভাবা হচ্ছে। এক্ষেত্রে জাতীয়তাবোধ গড়ে তুলতে ইন্ডিয়া এর পরিবর্তে ‘ভারত’ নামটিকেই অধিক গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। দেশের শীর্ষ আদালত সুপ্রিম কোর্টে এবিষয়ে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। দেশের দুটো নামের বদলে একটি করতে হবে। সেক্ষেত্রে “ভারত বা হিন্দুস্তান” নামকে প্রাধান্য দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টে এই মামলার শুনানি হবে আগামী ২ রা জুন। মামলার আবেদনে দাবী করা হয়েছে,একটি নাম দেশের মানুষের মধ্যে জাতীয়তাবোধ বাড়াতে সাহায্য করবে। সেইসাথে ভারতীয় হিসাবে গর্ববোধ হবে দেশবাসীর। আর এবিষয়ে কেন্দ্রের কাছে হলফনামা চেয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।
সংবিধানের ধারা এবং অনুচ্ছেদের উল্লেখ করে এই আবেদন করা হয়েছে। বলা হয়েছে দুটি নামের জায়গায় একটি হলে দেশবাসীর জাতীয়তাবোধ বাড়বে। যদিও এক্ষেত্রে সংবিধানের সংশোধন করতে হবে। আর সেই জন্য কেন্দ্রকে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে হবে। ইংরেজিতে”ইন্ডিয়া”। আবার দেশীয় ভাষায়”ভারত”। একই দেশের দুটি নামেই এত বছর ধরে চলে আসছে। কিন্তু ২ রা জুনের পর দেশের নাম হতে পারে একটি। সেক্ষেত্রে এগিয়ে রয়েছে”ভারত”নামটিই। “হিন্দুস্তান” নামটির কথা বলা হলেও “ভারত”নামটির পাল্লা অনেক ভারি। মামলার আবেদন সুপ্রিম কোর্টে জমা পড়েছে কয়েকদিন আগে। তবে সংশ্লিষ্ট বিচারপতি অনুপস্থিত থাকায় মামলা নথিভুক্ত হয়নি। দিল্লীর জনৈক ব্যক্তি এই মামলাটি দায়ের করেছেন। মামলাকারীর যুক্তি ভারত নামটির মধ্যে লুকিয়ে রয়েছে নস্টালজিয়া। ভারত নামটির মধ্যে দিয়ে দেশের বহু পুরনো ইতিহাস মানুষের মনে জেগে উঠবে। তৈরী হবে জাতীয়তাবোধ। উল্লেখ্য ১৯৪৮ সালের গণপরিষদেই এই”ভারত “বা “হিন্দুস্তান” নামকরণের দাবি উঠেছিল। কথিত আছে, চন্দ্রবংশীয় পৌরাণিক রাজা ভরতের নামানুসারে এই দেশের নামকরণ। প্রাচীনকালে গ্রিকরা ভারতীয়দের ইন্দাস বা ইন্দোই অর্থাৎ সিন্ধু অববাহিকার অধিবাসী বলতেন। সেখান থেকেই “ইন্ডিয়া” নামের উৎস। সেক্ষেত্রে “ভারত” নামটি অনেক বেশী দেশীয়।

তবে আপনার মতে কোন নামটি যথোপযুক্ত?