নীলাঞ্জন সেনগুপ্তঃ ২১ জুন, রবিবার এবছর সূর্যের বলয় গ্রাসের এক বিরল ছবি দেখতে চলেছে গোটা বিশ্ব। তবে এই গ্রহণ সবচেয়ে ভালো ভাবে দেখা যাবে তাইওয়ানে। এছাড়া আফ্রিকার কিছু দেশ যেমন কঙ্গো, ইথিওপিয়া, পাকিস্তানের দক্ষিণ ও ভারতের উত্তরাঞ্চল, চিন, অস্ট্রেলিয়ার উত্তরাঞ্চল, ভারত মহাসাগর এবং প্রশান্ত মহাসাগর থেকে এই পূর্ণ বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে বলে জানিয়েছেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা। আকাশ পরিস্কার থাকলে এক বিরল নিসর্গ দৃশ্য “রিং অফ ফায়ার” দেখার সুযোগ পাবেন ওইসব এলাকার বাসিন্দারা। কলকাতা থেকেও দেখা যাবে এই বলয়গ্রাস তবে তা আংশিক। রিং অফ ফায়ারের সৌন্দর্য্য তাতে থাকবে না। দিল্লি থেকেও এই গ্রহণের সম্পুর্ন দেখা যাবে না। গ্রহণ শুরু হবে ভারতীয় সময় সকাল নয়টা বেজে পনেরো মিনিটে । চলবে প্রায় ৬ ঘণ্টা এবং পূর্ণগ্রাস শুরু হবে সকাল ১০ টা ১৭ মিনিটে। পূর্ণগ্রহণ হবে ১২ টা ১০ মিনিটে। পূর্ণ গ্রহণ চলবে দুপুর ২ টা ২ মিনিট পর্যন্ত। গ্রহণ শেষ হবে বিকেল ৩ টা ৪ মিনিটে।
সূর্যের বলয়গ্রাস বলতে যা বোঝায় তার বিজ্ঞানের পরিভাষা হল অ্যানুলার সোলার একলিপ্স। কক্ষপথে প্রদক্ষিণের সময় চাঁদ যখন এমন একটা দূরত্বে চলে যায়, যাতে সে সূর্যকে পুরোপুরি ঢেকে দিতে পারে না, তখনই হয় সূর্যের বলয়গ্রাস। তখন চাঁদ সূর্যের মাঝখানটাকে চাকতির মতো ঢেকে দেয় বটে। কিন্তু তার পরেও সেই চাকতির চারপাশ থেকে বেরিয়ে আসতে দেখা যায় সূর্যের আলো। অনেকটা আংটির মতো। অ্যানুলার শব্দটি এসেছে লাতিন শব্দ অ্যানুলাস থেকে যার অর্থ আংটি। তবে নিঃসন্দেহে এই গ্রহনে এক বিরল দৃশ্যের সাক্ষী হতে চলেছে বিশ্ব।