“প্রেম” মানে না কোনও বাধা,মানে না কোনও সীমা।”প্রেম”মানেই অন্ধ আবেগ। প্রেম সম্পর্কে এধরনের নানান কথা আমরা শুনে থাকি। আর বাস্তবে তার প্রমান দেখা গেল এই ঘটনায়। প্রেমের টানে ভারত-পাকিস্তান সীমান্তে পাড়ি জমালো এক যুবক। আর এর জন্য তিনি নিয়েছিলেন গুগল ম্যাপের সাহায্য। সীমানার অপর প্রান্তে পাকিস্তানে থাকা প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে রওনা দেয় যুবক। যদিও শেষ পর্যন্ত দেখা হয়নি তার প্রেমিকার সাথে। দীর্ঘ পথ যাত্রায় সীমান্ত পার করার আগেই অসুস্থ হয়ে পড়ে ওই প্রেমিক যুবক। সংজ্ঞাহীন অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্সের জওয়ান।

যুবকের নাম সিদ্দিকি মুহাম্মদ জিশান। মহারাষ্ট্রের ওসামাবাদ এলাকায় তার বাড়ি। ২০ বছর বয়সী জিসানের সাথে ফেসবুকে পরিচয় হয় এক নারীর। যে পাকিস্তানের করাচীর বাসিন্দা। ফেসবুকে আলাপের পর প্রেমের সম্পর্ক আরও গভীরে যায়। শুরু হয় ম্যাসেঞ্জারে বার্তালাপ, ধীরে ধীরে তা সহজেই চলে আসে হোয়াটসঅ্যাপে।
শেষ পর্যন্ত প্রেমের গভীর টানে প্রায় ১২০০ কিলোমিটারের দূরত্ব অতিক্রম করে সে চলে আসে তার প্রেমিকার সাথে দেখা করতে। যদিও সম্পূর্ণটাই হয়েছিল ভার্চুয়াল প্রক্রিয়ায়। সামনে থেকে তারা কেউই কাউকে দেখেনি। আর সেই দূরত্ব দূর করতেই দেখা করতে চলে আসে সিদ্দিকি মুহাম্মদ জিশান। বাইক নিয়েই মহারাষ্ট্রের ওসামাবাদ থেকে করাচীর উদ্দেশ্যে রওনা দেয় সে। ১২০০ কিলোমিটার বাইক চালিয়ে সে প্রায় পৌঁছে গিয়েছিল পাকিস্তান সীমান্তের বেশ কাছেই।সেই সময়েই ঘটল বিপত্তি।
গুজরাট হয়ে পাকিস্তানে প্রবেশের পরিকল্পনা করেছিল ওসামাবাদের যুবক সিদ্দিকি মুহাম্মদ। কচ্ছের রণ এলাকায় পৌঁছেও গিয়েছিল সে। কিন্তু এই গ্রীষ্মে শরীর আর সঙ্গ দেয়নি তার। সীমান্তের কাছে এসেই সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলে সিদ্দিকি মুহাম্মদ জিশান। সেখান থেকেই তাকে উদ্ধার করেন বি.এস.এফ. এর জওয়ানরা। ভর্তি করা হয় স্থানীয় হাসপাতালে এবং পরে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয় প্রেমিক সিদ্দিকিকে।