করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কোনমতেই কমছে না শিলিগুড়িতে। কখনো কখনো সংখ্যা কিছুটা কমলেও তা নিশ্চিত হবার মতো নয়। বিগত কয়েকদিন ধরে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় একই রয়েছে। ৩০ থেকে ৪০ এর মধ্যে এই সংখ্যা অপরিবর্তিত থাকছে। যদিও শিলিগুড়িতে ধীরে ধীরে জনজীবন স্বাভাবিক হচ্ছে।এখন প্রায় সকলেই বাইরে বের হয়ে যে যার কাজে যোগ দিয়েছে। কিন্তু বাইরে বের হলেও মানুষের মধ্যে সচেতনতার অভাব যথেষ্ট রয়েছে। সরকারি স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলছে না অনেকেই। আর একারনেই সংক্রমণ না কমে একটি নির্দিষ্ট জায়গায় রয়েছে বলে মনে করেন বিশিষ্ট চিকিৎসকেরা। বাইরে বের হলে ফেস কভার বা মাস্কে নাক এবং মুখ ঢাকতে দেখা যাচ্ছে না অনেককেই। এমনকি বাজার ঘাটে একসাথে একাধিক মানুষকে একই জায়গায় জমায়েত হতেও দেখা যাছে। অর্থাৎ শহরবাসীর অনেকেই এখনও মানছেন না সরকারি নিয়ম বিধি। আর একারনেই আক্রান্তের গ্রাফ নিম্নমুখী নয়। আসলে গৃহবন্দি থাকতে চায় না কেউই, তাই অনেকেই ছুটির দিনে বেড়িয়ে পড়ছেন এদিক ওদিক। যেমন আশপাশের সেবক, সুকনা,কার্শিয়াং, কালিম্পং, গজলডোবা প্রভৃতি স্থান গুলোতে ১৫ আগস্ট ভীড় ছিল চোখে পড়বার মতো। তারা বুঝছে না যে এই ভিড় না কমলে আক্রন্তের গ্রাফ নামবে না। আর একথা পরিস্কার জানিয়ে দিয়েছেন চিকিৎসকমহল। করোনাকে নির্মূল করতে হলে আমাদের আরও সচেতন হতে হবে সেই সাথে অপরকেও বোঝাতে হবে। মেনে চলতে হবে সরকারী নিয়ম বিধি।সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলতে হবে। আমরা আশা করছি যে আমরা আবার আমাদের প্রাণ চঞ্চল শিলিগুড়িকে ফিরে পাবো।