মৃত্যুঞ্জয় রুদ্রঃ লেখাটি আলিপুরদুয়ার থেকে শ্রী শুভ্রাংশু কুমার বসু ভৌমিক পাঠিয়েছিলেন আনন্দ বাজার পত্রিকার সম্পাদকীয় বিভাগে। লেখাটি যে প্রকাশিত হবে না এটাই স্বাভাবিক। তাই আমাদের মতো ক্ষুদ্র নিউজ পোর্টালে তুলে ধরলাম।

গত কয়েকদিনের আনন্দবাজার পত্রিকার প্রথম পাতায় কয়েকটি ক্যাপশন – ” করোনা আক্রান্ত প্রণব”, “রক্তক্ষরণে সংকটে প্রণব”, “একই রকম প্রণব”, “প্রণব এখনো ভেন্টিলেশনে”, গভীর কোমায় প্রণব- ইত্যাদি ( আনন্দবাজার পত্রিকা ১১-০৮-২০২০– ১৫-০৮-২০২০ ইং)

এ আমরা কোন দেশে আছি? একজন দেশের প্রাক্তন রাস্ট্রপতিকে তাঁর নাম ধরে ক্যাপশন দেবার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। অবাক হলাম। শিষ্টাচারের কী অভাব আমাদের! নাম ধরে তিনদিন চারদিন,পাঁচদিন পর পর লিখে যাচ্ছেন, অথচ বলার কেউ নেই! ভুলটা ধরিয়ে দেবার কেউ নেই! একটু সন্মান দিয়ে কি “প্রণববাবু” লেখা যেত না ? এটুকু সন্মান কী ওনার প্রাপ্য নয়? এটুকু সন্মান কী ওনার মতো বর্ষীয়ান ব্যক্তিত্ব এবং তাঁর পরিবার আশা করেন না?
তথাকথিত বুদ্ধিজীবী সংসারের কাছে হয়তো এটাই সংস্কৃতির অঙ্গ। তবে এই বুদ্ধিজীবী বর্গ যদি আমাদের দেশের মানুষের ভবিষ্যৎ শিক্ষক হন, তবে তৈরী থাকুন, ভবিষ্যতে হয়তো আমরাও আমাদের ছেলে মেয়েদের মুখে নাম ধরে সম্ভাষণ শুনতে পাবো।
– শ্রী শুভ্রাংশু কুমার বসু ভৌমিক
আলিপুরদুয়ার।