রুহনীল বসুঃ কিছুদিন আগে আমাদের খবরে প্রকাশিত হয়েছিল স্বামীর বিরুদ্ধে একাধিকবার বিয়ের অভিযোগ স্ত্রীর। আজ সেই স্ত্রীকে তাঁর সন্তানসহ বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। স্ত্রী তাঁর অধিকারের দাবিতে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্ণায় বসে ১০ মাসের শিশুকে নিয়ে। স্ত্রী লিলি দাসকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠল স্বামী প্রণবেন্দু চৌধুরীর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে শিলিগুড়ির চয়নপাড়া এলাকায়। অভিযুক্ত স্বামীর শাস্তি এবং সন্তানের ভরণ পোষণের দাবিতে শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন স্ত্রী লিলি দাস। পেশায় এস বি আই লাইফ এর কর্মী শিলিগুড়ির চয়নপাড়ার বাসিন্দা প্রণবেন্দু চৌধুরীর সাথে বিয়ে হয় নকশালবাড়ির হাতিঘিসার বাসিন্দা লিলি দাসের। লিলি দাসের অভিযোগ বিয়ের পর থেকেই তাঁর উপরে শারীরিক এবং মানসিক অত্যাচার চালাতো স্বামী এবং তাঁর শ্বশুরবাড়ির লোকজন। বেশ কয়েকবার লিলি দাসকে বাপের বাড়িতেও রেখে আসা হয়েছে।এমনকি দুইসপ্তাহ আগেও লিলি দাসকে বাপের বাড়িতে চলে যেতে বলা হয় এবং পরে বাপের বাড়ি থেকে ফিরে আসতে চাইলে তাকে আসতে মানা করা হয়।
লিলি দাস আগেও সংবাদ মাধ্যমে বলেছিলেন তার স্বামীর এর আগেও দুবার বিয়ে হয়েছিল। সেই সাথে একজন মহিলার সাথে অবৈধ সম্পর্কও রয়েছে তার স্বামীর এবং এক পক্ষের একটি মেয়েও রয়েছে। সবকিছুই তাঁদের কাছে গোপন করে বিয়ে দেওয়া হয়েছিল। অপরদিকে প্রনবেন্দু চৌধুরী তার স্ত্রী লিলি দাসকে জানান, যে এইমুহূর্তে তাঁর চাকুরী নেই তাই তিনি তাঁকে ভরণপোষণ দিতে পারবেন না। পরে স্ত্রী লিলি দাস জানতে পারেন যে তাঁর স্বামীর চাকরি যায়নি এবং তাকে ডিভোর্স দিয়ে আর একজনকে বিয়ে করবার ফন্দি করছেন। লিলি দাস আরও জানান যে তাঁর স্বামীর জামাইবাবু পুলিশে কাজ করেন এবং তাকে দিয়েই বেশ কয়েকবার হুমকি দেওয়া হয়েছে লিলি দাসকে। লিলি দাস আগেও আশিঘর পুলিশ ফাঁড়িতে অভিযোগ দায়ের করেছিলেন কিন্ত পুলিশের তরফে থেকে কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।