রুহদ্রোনীল পালঃ এবার থেকে ভূগর্ভস্থ ও পানীয় জলের অপব্যবহার শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এই সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে সেন্ট্রাল গ্রাউন্ড ওয়াটার অথরিটি। এব্যাপারে পুর সংস্থাগুলিকে ঠিকমতো নিয়মকানুন ও পরিকাঠামো তৈরির নির্দেশ দিয়েছে তারা।
কল খুলে রেখে মূল্যবান জল নষ্ট করা এদেশের নিয়ম। জল নষ্ট হয়ে নর্দমায় গিয়ে পড়ছে, অথচ এমন অসংখ্য মানুষ আছেন, যাঁদের কাছে বিশুদ্ধ পানীয় জলটুকুও পৌঁছয় না। এই পরিস্থিতিতে ২০১৯-এর ১৫ অক্টোবর ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইবুন্যালের নির্দেশ অনুসারে পরিবেশ সুরক্ষা আইনের ৫ নম্বর ধারায় নোটিশ জারি করেছে সিজিডব্লিইএ। রাজেন্দ্র ত্যাগী বনাম ভারত সরকার মামলায় আবেদনকারী দাবি করেন, জল নষ্ট ও অপব্যবহার করাকে শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে দেখতে হবে। এরপরই গ্রিন ট্রাইবুন্যালের এ ব্যাপারে নির্দেশ। সিজিডব্লিউএ বলেছে দেশের সর্বত্র পানীয় জল বা ভূগর্ভস্থ জলের কোনওরকম অপব্যবহার হলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। রাজেন্দ্র ত্যাগীর হয়ে গ্রিন ট্রাইবুন্যালে যিনি মামলা লড়েন সেই আইনজীবী আকাশ বশিষ্ঠ বলেছেন, ভূগর্ভস্থ জল ও পানীয় জল নষ্ট করলে ৫ বছর পর্যন্ত জেল এবং জরিমানা হতে পারে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত বা এক সঙ্গে দুটোই। এরপরেও যদি অপরাধী নিয়ম না মানেন, তবে প্রতিদিন তাঁর ওপর ৫,০০০ টাকা করে জরিমানা দিতে হবে। আমাদের দেশে যে ভাবে জলের অপচয় হচ্ছে তাতে আইনের প্রয়োগ ছাড়া অন্য কোন পথ নেই। নইলে ভবিষ্যতে তীব্র জল সংকট দেখা দেবে তাতে সন্দেহ নেই